কুমিল্লার শালবান বিহারে সুনসান নীরবতা

কুমিল্লার শালবন বৌদ্ধ বিহারে ঈদ আর বিভিন্ন উৎসবে দর্শনার্থীর উপচেপড়া ভিড় থাকে। এবার ঈদের ছুটিতে দর্শনার্থীর ভিড় নেই। সেখানে বিরাজ করছে সুনসান নীরবতা।

কুমিল্লায় পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণ শালবন বৌদ্ধ বিহার ও ময়নামতি জাদুঘর। বৌদ্ধ বিহার ছাড়াও পাশের রূপবানমুড়া, কোটিলা মুড়া, নগরীর চিড়িয়াখানা ও বাণিজ্যিক পার্কগুলোরও এবার একই অবস্থা।

সূত্রমতে, কুমিল্লা নগরী থেকে ৮ কিলোমিটার পশ্চিমে শালবন বিহার। ঢাকা-চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে রেল ও সড়কপথে যাতায়াতের সুব্যবস্থা থাকায় দর্শনার্থীরা এখানে সহজে আসতে পারেন। এখানে অষ্টম শতকের পুরাকীর্তি রয়েছে। রয়েছে ময়নামতি জাদুঘর। জাদুঘরের পাশে রয়েছে বন বিভাগের পিকনিক স্পট। শালবন বিহারের পাশে বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমি (বার্ড)।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, শালবন বৌদ্ধ বিহার ও ময়নামতি জাদুঘর এলাকায় দর্শনার্থীর আনাগোনা নেই। গেটে তালা। ভেতরে গিয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন রঙের ফুল তার রূপের পসরা সাজিয়ে বসে আছে। কিন্তু তার রূপ দেখার কেউ নেই। পাতা বাহারও তার সৌন্দর্য ছড়াচ্ছে। তাল গাছের মাথায় বাসা বোনায় ব্যস্ত বাবুই পাখি। খেজুর গাছের মাথায় ঝুলছে হলুদ ফলের কাদি। ক্রেতা না থাকায় বিহারের সামনের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা হতাশ মুখে বসে আছেন। এ দিকে কিছু দর্শনার্থী এসে শালবন বিহার বন্ধ পেয়ে পাশের শাল বাগানে ঘুরাফেরা করছেন।

সাইফুল ইসলাম নামের একজন ব্যবসায়ী জানান, স্বাভাবিক সময়ে ১০ হাজার টাকা বিক্রি করতে পারতাম। আজ এক হাজার টাকাও বিক্রি করতে পারিনি। মানুষ না থাকলে কার কাছে বিক্রি করবো?

বুড়িচং থেকে আসা দর্শনার্থী গোলাম সারোয়ার বলেন, করোনায় সব বন্ধ। ঈদ উপলক্ষে শিশুরা কোথায়ও ঘুরতে যেতে চায়। বাধ্য হয়ে এদিকে এসেছি। এসে দেখি সব কিছু বন্ধ। স্বাস্থ্যবিধি মেনে পর্যটন কেন্দ্র গুলো খুলে দেয়া উচিত।

প্রত্নতত্ত্ব অধিদফতর চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের আঞ্চলিক পরিচালক ড. আতাউর রহমান জানান, ঈদের ছুটিতে এখানে দর্শনার্থীর উপচে পড়া ভিড় থাকত। করোনার কারণে গতবারের মতো এবারো শালবন বৌদ্ধ বিহার ও ময়নামতি জাদুঘর বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে এর রক্ষণাবেক্ষণ ও সংস্কারে আমরা সচেষ্ট রয়েছি।

About admin

Check Also

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস: সংক্রমণ ও প্রতিকার

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস: সংক্রমণ ও প্রতিকার করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় ভারত যখন বিপর্যস্ত ঠিক তখনই ব্ল্যাক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *